নুরুজ্জামান 'লিটন' - (Naogaon)
প্রকাশ ১০/০৬/২০২২ ১০:৩২পি এম

বদলগাছীতে এক নারীকে দুইবার বিয়ে করেও সম্পর্ক টেকাতে না পেরে যুবকের মামলা

বদলগাছীতে এক নারীকে দুইবার বিয়ে করেও সম্পর্ক টেকাতে না পেরে যুবকের মামলা
ad image
এক নারীকে দুইবার বিয়ে করে ও তার সাথে সম্পর্ক টিকাতে ব্যর্থ হওয়ায় এবং দাম্পত্য সম্পর্ক পুনরুদ্ধারে নওগাঁ মোকাম বিজ্ঞ বদলগাছী পারিবারিক আদালতে মামলা করেছেন নওগাঁর যুবলীগ নেতা আমিনুর রহমান।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ২০ জুন ২০১৯ ইং তারিখে নওগাঁ জেলার বদলগাছী উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের পাহাড়পুর গ্রামের মৃত সুজাউল হকের ছেলে মোঃ আমিনুর রহমানের সাথে কিসামত পাঁচঘরিয়া গ্রামের মোঃ তৌহিদুল ইসলামের মেয়ে তুলি পারভীনের বিয়ে হয়। উক্ত বিবাহে ৫০ হাজার টাকার দেনমোহর ধার্য করা হলে স্বর্ণালঙ্কার বাবদ ৪৫ হাজার টাকা পরিশোধ করে ৫ হাজার টাকা বাঁকি রেখে তাদের বিবাহ রেজিস্ট্রি সম্পন্ন হয়। এরপর থেকে দাম্পত্য সম্পর্ক বজায় রেখে সংসার পরিচালনা করে আসছিল।
হঠাৎ গত ১৭ ই মার্চ ২০২২ তারিখে বাদী আমিনুর রহমান দলীয় প্রোগ্রামে বাড়ির বাইরে থাকা অবস্থায় বিবাদীর বাবার বাড়ি থেকে কে বা কারা এসে বিবাদী তুলি পারভিনকে ভুল বুঝিয়ে বিবাদীর বাবার নিয়ে যায়।
বাদী প্রোগ্রাম শেষে বাড়িতে গিয়ে বিবাদীকে দেখতে না পেয়ে বাদীর পরিবারের অন্যান্য সদস্যকে জিজ্ঞাসা করলে তারা জানান বিবাদী বেড়ানোর ছলে বাবার বাড়ি গেছে। এমতাবস্থায় যাতে ওই দিন রাতে বিবাদীকে নিতে বিবাদীর বাবার বাড়ি গেলে বিবাদীর বাবার বাড়ির লোকজন বাদীকে অপদস্ত করে বিবাদীর সাথে দেখা করতে না দিয়ে বাদীকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়।

এরপর বাদী বিভিন্নভাবে বিবাদীর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে বিবাদীর পিতামাতা তা করতে দেয়না। এমতাবস্থায় বাদী গত ২৪ এপ্রিল ২০২২ তারিখ রোজ বৃহস্পতিবার বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে তাদের সংসারে বিবাদীকে ফিরে আনার লক্ষ্যে মন্ডল মাতব্বর সহ বিবাদীকে নিতে গেলে বিবাদী বাদীকে দেখে তাহার সাথে আসতে চাইলে বিবাদীর বাবা বিবাদীকে কিছুতেই আসতে দিবে না মর্মে বিবাদীকে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে এবং বাদীপক্ষকে ফিরিয়ে দেয়।
এদিকে বাদীকে ছাড়া বাদীর সংসার একেবারে অচল হয়ে পড়েছে। এখনো বিবাদীর সাথে বাদীর দাম্পত্য সম্পর্ক বহাল আছে মর্মে তা পুনরুদ্ধারের ডিক্রী প্রার্থনায় অত্র মোকদ্দমা দায়ের করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বিবাদী তুলি পারভীন এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দ্বিতীয় বিবাহের সম্পর্ককে অস্বীকার করে তাকে মিথ্যা অপবাদ দেয়া হচ্ছে এবং তাকে বিভিন্নভাবে হেনস্তা করার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও তিনি জানান। তিনি জানান,আমিনুর একটি ভূয়া কাবিন দেখিয়ে আমাকে স্ত্রী বলে দাবি করে। কিন্তু আমি ঐ কাবিনের জন্য আবার তাকে ডিভোর্স দেই।

এদিকে বাদী আমিনুর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি জানান, মামলা সূত্রে যা বর্ণনা করা হয়েছে তা সত্য। বিবাদীকে তার পিতা-মাতা বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে এসব অস্বীকার করতে বাধ্য করছেন বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

এছাড়াও তিনি জানান, তুলি পারভিনের সাথে আমার প্রথম বিয়ে হয় ২০১৩ ইং সালের ১০ই ডিসেম্বর। এর পর তুলি আমাকে ১৩ ই ডিসেম্বর ২০১৮ইং সালে ডিভোর্স দেয়।
এর পরবর্তীতে সে আমার সাথে নতুন ভাবে সংসার করতে ফোনে কথা বলে যদি আমি তাকে বিয়ে না করি তাহলে তুলি আত্নহত্যা করবে মর্মে আমাকে হুমকি দেয়। আমি বাধ্য হয়ে তার বাবার সাংসারিক অবস্থার কথা ভেবে আমি তাকে পুনরায় ২০ জুন ২০১৯ইং সালে তার নিজ চাচা হাসানের বাড়িতে দ্বিতীয়বার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। বিয়ের পরে বেশ কিছু দিন আমার সাথে ঘরসংসার করার পরে সে আমার কাছে চাকুরী করার আবদার করে।

বিয়ের পরে তুলি মৌসুমী নামক এক এনজিওতে চাকুরী নেয়। পরে আমার বাড়ি থেকে হঠাৎ একদিন আমাকে না জানিয়ে তার বাবার বাড়িতে চলে যায়। পরে জানতে পারলাম সে চাকুরী ছেড়ে দিয়েছে এবং আমার সাথে সকল প্রকার যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়।

আমি আমার সংসারে তাকে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য গত ২৫-৪-২২ইং তারিখে বাধ্য হয়ে আদালতে দাম্পত্য পুনরুদ্ধারে বদলগাছি পারিবারিক আদালতে মামলা করি। আমি তাকে আমার বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে আবারও সংসার করতে চাই।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ