MAHBUBUR RAHMAN OVI
প্রকাশ ১৪/০৩/২০২২ ০২:১১পি এম

বাংলার সমৃদ্ধি জাহাজের নাবিক হাদিসুরের মরদেহ গ্রামের বাড়ির পথে শেষ ঠিকানায়

বাংলার সমৃদ্ধি জাহাজের নাবিক হাদিসুরের মরদেহ গ্রামের বাড়ির পথে শেষ ঠিকানায়
ad image
এমভি বাংলার সমৃদ্ধি জাহাজের নাবিক ও থার্ড ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মাদ হাদিসুর রহমানের মরদেহ ফ্রিজআপ ভ্যানে করে তার নিজ গ্রামের বাড়ি বরগুনার পথে শেষ ঠিকানায়।

ইউক্রেনের ওলভিয়া বন্দরে রকেট হামলায় নিহত হাদিসুর রহমানের নিথর মরদেহ সোমবার (১৪ মার্চ) দুপুর ১২টা ৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছালে বিমানবন্দরের সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে তা স্বজনদের নিকট হস্তান্তর করা হয়।
অপরদিকে (১৫ মার্চ ) মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় বরগুনা জেলার বেতাগী উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নের কদমতলা গ্রামের নিজ বাড়িতে নিহত নাবিক হাদিসুরের নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে ।

এর পূর্বে গত রোববার রাতে (১৩ মার্চ) হাদিসুরের মরদেহ দেশে পৌঁছানোর কথা ছিল। কিন্তু শনিবার রাতে বুখারেস্ট এয়ারপোর্টে প্রচন্ড তুষারপাতের কারণে প্রায় শতাধিক ফ্লাইট বাতিল হয়। এর মধ্যে হাদিসুরের মরদেহ বহনকারী তার্কিশ এয়ারের নির্ধারিত ফ্লাইটটিও ছিল। পরবর্তীতে ফের শিডিউল ঠিক করে রোববার রাতে বুখারেস্ট ছাড়ে হাদিসুরের মরদেহবাহী ফ্লাইটটি।

জানাগেছে, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের (বিএসসি) মালিকানাধীন জাহাজ বাংলার সমৃদ্ধি ড্যানিশ কোম্পানি ডেল্টা কর্পোরেশনের অধীনে ভাড়ায় চলছিল। গত ২২ ফ্রেরুয়ারি মুম্বাই থেকে তুরস্ক হয়ে জাহাজটি ইউক্রেনের ওলভিয়া বন্দরে যায়। ওলভিয়া থেকে সিমেন্ট ক্লে নিয়ে ২৪ ফ্রেরুয়ারি ইতালির রেভেনা বন্দরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হওয়ার কথা ছিল জাহাজটির।কিন্তু এর আগেই ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরু হলে ২৯ জন ক্রু নিয়ে ওলভিয়া বন্দরে আটকা পড়ে জাহাজটি।

পরবর্তীতে বুধবার (২ মার্চ) রকেট হামলায় জাহাজের থার্ড ইঞ্জিনিয়ার হাদিসুর রহমান মারা যান। তবে জাহাজে থাকা বাকি ২৮ জনকে পরের দিন বৃহস্পতিবার অক্ষত অবস্থায় সরিয়ে নেওয়া হয়। এরপর একটি আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সহযোগিতায় শনিবার (৫ মার্চ) বাংলাদেশ সময় দুপুরে ইউক্রেনের ওলভিয়া বন্দর সংলগ্ন বাংকার (শেল্টার হাউজ) থেকে বেরিয়ে মালদোভার পথে যাত্রা শুরু করেন নাবিকরা। পরের দিন রোববার (৬ মার্চ বেলা) তারা ইউক্রেন সীমান্ত পেরিয়ে মালদোভা হয়ে রোমানিয়া পৌঁছান। বুধবার (৯ মার্চ) ২৮ নাবিক রোমানিয়ার বুখারেস্ট বিমানবন্দর থেকে তার্কিশ এয়ারের একটি ফ্লাইটে ইস্তাাম্বুল হয়ে ঢাকায় ফেরেন। তন্মধ্যে ১২ নাবিক বুধবার রাতেই নভো এয়ারের একটি লোকাল ফ্লাইটে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে পৌঁছান।

বরগুনা বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শাহ-আলম হাওলাদার মুঠোফোনে জানান, নাবিক হাদিসুরের মরদেহ এখনও বেতাগীতে পৌঁছায়নি , ধারনা করা হচ্ছে রাত ৯ টা থেকে ১০টার মধ্যে পৌঁছাবে । তিনি আরও জানান,সকল ধরনে শৃংখলা রক্ষায় পুলিশ এখানে পেট্রল ডিউটি করছে।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ