নাজমুল হোসেন , সংবাদদাতা ( বগুড়া ) - (Bogura)
প্রকাশ ০৩/০৩/২০২২ ০৮:৪২এ এম

বগুড়ায় মহাসড়কে উন্মুক্ত ট্রাকে বালু পরিবহন, জন-ভোগান্তি চরমে

বগুড়ায় মহাসড়কে উন্মুক্ত ট্রাকে বালু পরিবহন, জন-ভোগান্তি চরমে
ad image
বগুড়ার মহাসড়কসহ বিভিন্ন রাস্তায় ত্রিপল বা প্রটেকশন ছাড়ায় বেপরোয়া গতিতে চলাচল করছে বালু ভর্তি ট্রাক ও নছিমন। ফলে উন্মুক্ত ওইসব যানবাহন থেকে উড়ে আসা বালু পথচারীদের চোখে মুখে এসে পড়ছে ও আশপাশের পরিবেশ নোংরা করছে। এতে অস্বস্তিতে আছেন রাস্তায় চলাচল করা পথচারী ও স্থানীয়রা। এলাকাবাসী ও রাস্তার পাশের দোকানীদের ভাষ্য মতে, বালু বহনকারী ট্রাকের বেপরোয়া চলাচলে ধুলোবালি উড়ে রাস্তার দু’পাশের দোকান-পাট, ঘরবাড়ি বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে; হুমকির মুখে জনস্বাস্থ্য।

সরেজমিন বগুড়ার তিন মাথা এলাকায় গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। শহরের তিন মাথার আর্দশ কলেজ গেট এলাকায় কয়েকটি বালু বাহী ও খোয়া বাহী ট্রাক দেখা যায়। কোন প্রকার ত্রিপল ছাড়াই বেপরোয়া গতিতে চলাচল করতে দেখা গেছে । এসব যানের চাকার আঘাতে ক্ষত বিক্ষত হয়ে পড়েছে বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়ক। ফলে প্রতিদিন এলাকাবাসীসহ ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন পরিবহন চালক, যাত্রী ও পথচারীরা।

স্থানীয় দোকানীরা জানান, সড়ক থেকে দোকানগুলো প্রায় ৩০থেকে ৫০ ফুট দূরে থাকা সত্ত্বেও টিকে থাকা মুশকিল হয়ে যাচ্ছে। কারণ প্রতিনিয়ত বালুবাহী ট্রাক থেকে বালু উড়ে দোকানে আসছে। জিনিসপত্র নষ্ট হচ্ছে, ক্রেতারাও ভোগান্তিতে পড়ছে। ষাটোর্ধ্ব রইচ জানান, এই ট্রাকের উড়ে আসা বালু রাস্তায় কাপড়-চোপড়, চোখ মুখে এসে পড়ে ।মাক্স পড়েও রক্ষা নাই। আর সড়কের ধূলা তো আছেই! শ্বাসকষ্ট দিন দিন বাড়ছে। '

কামাল নামের বাস চালক বলেন, বিশেষ করে এই বালু, খোয়া আর ইটের ট্রাক পাল্লা দিয়ে রাস্তায় চলে। আমরা হিমসিম খেয়ে যাই এসব ট্রাকের কাছে।' সড়কের ক্ষতির বিষয়ে জানতে চাইলে সড়ক ও জনপথ বিভাগ বগুড়ার উপ-পরিচালক মো. রাফিউল ইসলাম বলেন, 'সড়ক নষ্টের অন্যতম কারণ ওভার লোড বহন। যানবাহন যদি অতিরিক্ত ২ গুন লোড বহন করে সেক্ষেত্রে সড়কের ক্ষতি হয় চার গুন।'

তিনি আরো বলেন, 'হাইওয়ে পুলিশের এটি দেখার কথা ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা। এছাড়া, বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে আমরা একাধিকবার জানিয়েছি। 'জনস্বাস্থ্যবিদরা বলছেন, ধুলা তাৎক্ষণিক ও দীর্ঘমেয়াদী সমস্যা কারন হতে পারে। চোখ জ্বালাপোড়া, কাশি, হাঁচি, অ্যালার্জিক রাইনাইটিস, হাঁপানি ইত্যাদি সমস্যা হতে পারে। আবার যাঁদের আগে থেকেই ফুসফুসের সমস্যা আছে, তাঁদের অল্পতেই সমস্যা জটিল করে তুলতে পারে। এছাড়া বায়ু দূষণের ফলে ধুলাবালি মস্তিষ্ক, হৃদপিণ্ড এবং রক্তের স্রোতে মিশে যায়।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ