Aminur Rahman - (Manikganj)
প্রকাশ ২৫/০১/২০২২ ০৫:২১এ এম

পানির অপচয় রোধে হালিমের ডিজিটাল অটো টব

পানির অপচয় রোধে হালিমের ডিজিটাল অটো টব
ad image
পানির অপচয় রোধে পরিবেশবান্ধব বনায়নের লক্ষ্যে ডিজিটাল অটো টবের আবিষ্কার করেছেন মানিকগঞ্জের মুহাম্মদ আব্দুল হালিম। এই টবে একবার পানি দিলে তিন মাসে আর পানি দেওয়ার প্রয়োজন নেই। এছাড়া টবটিতে প্রযুক্তিসম্পর্ণ একটি ডিভাইসের মাধ্যমে পৃথিবীর যেকোনো প্রান্ত থেকে মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে পানি দেওয়া যায়।
* এই টবে ১ বার পানি দিলে ৩ মাস চলে।
* টবের পানি শেষ হলে মোবাইলে নোটিফিকেশন যাবে।

* মোবাইল এ্যাপসের মাধ্যমে পৃথিবীর যেকোনো প্রান্ত থেকে টবে পানি দেওয়া সম্ভব।
* এই টবে ডেঙ্গু মশার লাভা জন্মানোর সুযোগ নেই।
* এই প্রযুক্তির মাধ্যমে ৮০ শতাংশ পানির অপচয় রোধ হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার ধল্লা শহীদ রফিক সেতু সংলগ্ন সৌদি খেজুর নার্সারি নামে একটি দোকানে সাজানো রয়েছে শতাধিক ডিজিটাল অটো টব। পাশেই নার্সারির মালিক মুহাম্মদ আব্দুল হালিম গড়েছেন একটি গবেষণাগার। দীর্ঘ দুই বছর গবেষণা করে তিনি পানির অপচয় রোধে পরিবেশ বান্ধব এই টবের আবিষ্কার করেন। টবটিতে পরিমাণ অনুযায়ী তরল সার প্রয়োগের মাধ্যমে ফুল ও ফলের দ্বিগুণ ফলন হয়। এই ডিজিটাল টবগুলো এমনভাবে তৈরি এতে কোন ধরনের ডেঙ্গু মশার লাভা জন্মানোর সুযোগ নেই। পরিবেশ বান্ধব এই ডিজিটাল টবের চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলছে। দেশের পাশাপাশি সৌদি আরব,দুবাই,মালোশিয়া, অস্ট্রেলিয়াতেও এই টবের চাহিদা বেড়েছে। ইতিমধ্যে মোহাম্মদ আব্দুল হালিম শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে ডিজিটাল এই টবের অনুমোদন পেয়েছেন। তার এই টবের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে অনেকের।

মুহাম্মদ আব্দুল হালিম জানান, ডিজিটাল অটো টবের পানি শেষ হলে আপনার মোবাইলে নোটিফিকেশন চলে যাবে। আপনি আপনার মোবাইল ফোনের এ্যাপসের মাধ্যমে পৃথিবীর যেকোনো প্রান্ত থেকে গাছের টবে পানি দিতে পারবেন। এই টবে একবার পানি দিলে তিন মাস চলবে।

তিনি আরো জানান, প্রচলিত নিয়মে আমরা যে প্রক্রিয়ায় টবে বা ফসলি জমিতে পানি দেই এতে পানির অপচয় হয়। একটি গবেষণায় দেখা গেছে ১ কেজি ধান উৎপাদন করতে গড়ে ২৫০০ থেকে ৩৫০০ লিটার পানি ব্যবহার হয়। এই পানির ৮০ শতাংশই অপচয় হয়। আমাদের প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ১ কেজি ধান উৎপাদন করতে ৫০০ লিটার পানিই যথেষ্ট। এছাড়া ভূগর্ভস্থ থেকে অতিরিক্ত পানি উত্তোলন করায় পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। পানির লেয়ার নিচে যাচ্ছে ও পৃথিবীর অনেক জায়গায় ইতিমধ্যে দেবে গেছে। কৃষি ক্ষেত্রে আমার এ আবিষ্কারের মাধ্যমে ৮০ শতাংশ পানির অপচয় রোধ সম্ভব। এতে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা হবে।

কৃষিবিদ ও কৃষি কর্মকর্তা টিপু সুলতান সপন বলেন, আব্দুল হালিমের আবিষ্কার করা ডিজিটাল অটো টব টেকসই, অর্থ সাশ্রয়ী ও পরিবেশ বান্ধব। প্রযুক্তিসম্পূর্ণ ডিজিটাল টবটি দেশে ও দেশের বাইরে চাহিদা রয়েছে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এটি বাণিজ্যিক ভাবে লাভবান হবে। এছাড়া তার আবিষ্কার করা ফিল্ড প্রযুক্তিটি কৃষি ক্ষেত্রে ব্যবহার করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় কাজ করবে।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ