Monir
প্রকাশ ২১/০১/২০২২ ০৭:১৩এ এম

Copa del Rey: বার্সেলোনা পারল না, ১০ জন নিয়েও কোয়ার্টার ফাইনালে রিয়াল

Copa del Rey: বার্সেলোনা পারল না, ১০ জন নিয়েও কোয়ার্টার ফাইনালে রিয়াল
ad image
চ্যাম্পিয়নস লিগ গ্রুপপর্ব থেকে বিদায়। স্প্যানিশ সুপার কাপ সেমিফাইনালের বাধাও টপকানো যায়নি। লা লিগা টেবিলেও শীর্ষ চারের বাইরে। সাত নম্বর জায়গাটা বার্সেলোনার সঙ্গে একদমই বেমানান।

কাল রাতে স্প্যানিশ কোপা দেল রে শেষ ষোলোর ম্যাচেও বার্সা সুবিধা করতে পারছিল না। অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে নির্ধারিত সময় পেরিয়ে যোগ করা সময়ের ৫ মিনিটের মাথায়ও ম্যাচ ২-২ গোলে অমীমাংসিত।

এমন সময় আবার চোট পেয়ে বসেন আনসু ফাতি। বদলি হয়ে নেমে চোটের কারণে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হওয়ায় কেঁদেই ফেলেন বার্সা তারকা। কিন্তু ম্যাচ শেষে বার্সা তাঁর মুখে হাসি ফোটাতে পারেনি।

বিলবাওয়ের বিপক্ষে শেষ ম্যাচ পর্যন্ত ম্যাচটা জিততে পারেনি বার্সা। ৩-২ গোলের হারে জাভির দলকে বিদায় নিতে হয়েছে কোপা দেল রে থেকেও। তবে এলচেকে ২-১ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে রিয়াল মাদ্রিদ। দুটি লাল কার্ডের এ ম্যাচে ১০ জন নিয়েও লড়াই করে জয় তুলে নেয় কার্লো আনচেলত্তির দল।

বার্সার জন্য মৌসুম বলতে বাকি রইল শুধু ইউরোপা লিগ ও লা লিগা। এর মধ্যে লিগে শিরোপা জয়ে পাল্লা দেওয়ার মতো অবস্থায় নেই জাভির দল। শীর্ষে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে ১৭ পয়েন্ট ব্যবধানে পিছিয়ে ছয়ে কাতালান ক্লাবটি। ইউরোপে দ্বিতীয় সারির ক্লাব টুর্নামেন্ট ইউরোপা লিগই এখন ভরসা।

ম্যাচে বিলবাওয়ের শ্রেষ্ঠত্ব মেনে নিয়ে এই বাস্তবতাই স্মরণ করিয়ে দিলেন বার্সা কোচ জাভি, ‘ব্যর্থতা শব্দটা আমার অপছন্দ। কারণ আমরা চেষ্টা করেছি। তবে ব্যর্থ হলেও এখান থেকে শেখার আছে। এখন আমাদের জন্য বাকি রইল শুধু ইউরোপা লিগ ও লা লিগা। অ্যাথলেটিক আমাদের চেয়ে ভালো খেলেছে। তাদের অভিনন্দন। স্যান মেমেস খুব কঠিন জায়গা। বিশেষ করে অ্যাথলেটিকের এই কোচ ও দলটার বিপক্ষে।’

বিজ্ঞাপন

ঘরের মাঠে বার্সার বিপক্ষে রোমাঞ্চকর ফুটবলই উপহার দিয়েছে মার্সেলিনোর দল। অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো এ ম্যাচের ভাগ্য ১০৫ মিনিটে পেনাল্টি থেকে ঠিক করে দেন বিলবাও উইঙ্গার ইকার মুনিয়াইন।

বক্সের মধ্যে বার্সার লেফটব্যাক জর্দি আলবার ‘হ্যান্ডবল’ ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) নিশ্চিত হওয়ার পর পেনাল্টি থেকে গোলটি করেন মুনিয়াইন। এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি বার্সা। তার আগে ২-২ গোলে সমতায় থাকা ম্যাচে রোমাঞ্চের অভাব ছিল না।


ম্যাচের ২ মিনিটে দুর্দান্ত বাঁকানো শটে বিলবাওকে এগিয়ে দেন মুনিয়াইন। ২০ মিনিটে বক্সের মাথা থেকে নেওয়া শটে বার্সাকে সমতায় ফেরান সদ্যই ক্লাবটিতে যোগ দেওয়া ফেরান তোরেস। বার্সার হয়ে এটা তাঁর প্রথম গোল। কিন্তু ৮৬ মিনিটে ইনগিও মার্তিনেজের সঙ্গে কুলিয়ে উঠতে পারেননি বার্সার ৩৪ বছর বয়সী অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকে।

গোল করে বিলবাওকে আবারও এগিয়ে দেন মার্তিনেজ। যোগ করা সময়ের ৩ মিনিটে পেদ্রির গোলে আবারও সমতায় ফিরে ম্যাচটা অতিরিক্ত সময়ে টেনে নেয় বার্সা। বিলবাও আক্রমণভাগের গতির সামনে এ ম্যাচে ভুগেছে বার্সার ‘বুড়ো’ রক্ষণভাগ—দানি আলভেজ (৩৮ বছর), পিকে (৩৪ বছর), আলবা (৩২ বছর) ও সের্হিও বুসকেটস (৩৩ বছর)।

এলচের মাঠে নির্ধারিত সময়ে গোল করতে পারেনি রিয়াল। ৯০ মিনিট গোলশূন্য ছিল দুই দল। ১০২ মিনিটে তেতে মোরেনতেকে ফাউল করে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন রিয়াল অধিনায়ক মার্সেলো।

২ মিনিট পরই ফ্রি কিক থেকে গঞ্জালো ভেরদুর করা গোলে এগিয়ে যায় এলচে। দ্বিতীয় চেষ্টায় গোল করেন তিনি। ১০৮ মিনিটে ইসকোর গোলে রিয়াল সমতায় ফেরার পর ১১৫ মিনিটে রিয়াল গোল পায় বদলি হয়ে নামা এডেন হ্যাজার্ডের কাছ থেকে। প্রতি আক্রমণ থেকে গোলটি করেন বেলজিয়ান তারকা।


ম্যাচের শেষটা হয়েছে বিতর্ক দিয়ে। শেষ মিনিটে রিয়ালের জালে বল পাঠিয়েছিল এলচে। কিন্তু ফাউলের অপরাধে গোলটি বাতিল করে দেন রেফারি। অতিরিক্ত সময়ের একদম শেষ মুহূর্তে রেফারির সঙ্গে বাজে আচরণ করে লাল কার্ড দেখেন এলচে উইঙ্গার পেরে মিলা।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ