এসএম হাসান আলী বাচ্চু - (Satkhira)
প্রকাশ ০৯/০১/২০২২ ০৮:৪৯এ এম

satkhira: তালায় অবাধে চলছে বালু উত্তোলন

satkhira: তালায় অবাধে চলছে বালু উত্তোলন
ad image
অবৈধ ড্রেজার দিয়ে কৃষি জমির কোল ঘেষে গাছ-পালাসহ ফসলী জমি নষ্ট করে তালায় অবাধে চলছে বালু উত্তোলনের মহোৎসব।বালু উত্তোলনকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় কিছুই করতে পারছেনা ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, তালা উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের লক্ষণপুর গ্রামের খৃষ্টান মিশনের পাশে ১ কোটি ৭০ লক্ষ টাকার রাস্তার কাজে বালুর প্রয়োজন থাকায় স্থানীয় এক পুলিশের উদ্ধর্তন কর্তার নাম ভাঙ্গিয়ে কৃষি জমি ধ্বংস করে বালু উত্তোলন করতে দেখা গেছে। অপরদিকে একই ইউনিয়নের লাউতাড়া গ্রামের সোনাপাতিল বিল থেকে শ্মশান ঘাটের প্রায় ১০ লক্ষ টাকার কাজের জন্য চলছে অবৈধ বালু উত্তোলন।

এমনকি বালু উত্তোলনের ভিডিও ধারণের সময় কর্তব্যরত শ্রমিক বলতে থাকেন ছবি তুলছেন কেন এই বালু তুলছেন পুলিশ কর্মকর্তা(কর্তার নাম ব্যবহার করা হয়েছে)। ঘটনা স্থলে বালু মেশিন ম্যান হাসান পালালেও অপারেটর মোঃ সাইফুল ইসলাম ও মোঃ রিপন সাংবাদিকদের উপস্থিত টের পেয়ে তাড়াহুড়ো করে মেশিন বন্ধ করে চলে যান।

এছাড়া লাউতাড়া গ্রামের সোনা পাতিল বিলে মোঃ অজিয়ার রহমানের মেশিন দিয়ে সকলের অগোচরে বালু উত্তোলন হচ্ছে ১৪ দিন ধরে। বালু উত্তোলন কারী নাম জানতে চাইলে তাহার বলেন ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য,র কথামত বালু উত্তোলন করছি।উভয়স্থানে বালু উত্তোলনের কনট্রাকটদের কাউকে খুঁজে পাওয়া না গেলে মোবাইল ফোন মারফত যোগাযোগ চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় এলাকাবাসী বলেন,তালায় উপজেলা প্রশাসনের বিশেষ নজর না থাকায় বালু খেকোরা বেপোরায়া হয়ে উঠেছে।মাঝে মধ্যে উপজেলা প্রশাসন হানা দিলেও কিছু দিন পরে বালু খেকোরা আইনের তোয়াক্কা না করে পুনরায় ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করেই যাচ্ছে। সেটি আবার এক দুই নয় প্রায় ১০-১৫ দিন যাবত চলছে বালু উত্তোলন।

এ বিষয়ে তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ জানান, উভয়স্থানে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের খবর তিনি জানেন না। আর যে স্থানে আমার নাম বলা হয়েছে সেই শ্মশানের কাজের বিষয় আমি ইউপি সদস্য অবগত নয়।শ্মশান কমিটি অনত্র হতে অর্থের যোগান এনে কাজ পরিচালনা করছে। আমাদের জানানো প্রয়োজন মনে করিনি তারা। আপনাদের মাধ্যমে জানতে পারিলাম আমার ইউনিয়নে বালু উত্তোলন চলছে।অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নিচ্ছি।

তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস মুঠোফোনে জানান, ফসলি জমিতে বা জমির আশে পাশে অবৈধ উপায়ে বালু উত্তোলন করা সম্পূর্ণ বেআইনি। আমি এখুনি ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ