Md Tarik Hossan - (Rajshahi)
প্রকাশ ২৯/১২/২০২১ ১২:১৭এ এম

UP election: চারঘাটে দুইদিন পর পুকুর থেকে পাওয়া গেছে সিলমারা ব্যালট

UP election: চারঘাটে দুইদিন পর পুকুর থেকে পাওয়া গেছে সিলমারা ব্যালট
ad image
রাজশাহী চারঘাট উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের দুইদিন পর একটি ভোটকেন্দ্রের পাশের পুকুরে পাওয়া গেছে দুই শতাধিক সিলমারা ব্যালট পেপার।

মঙ্গলবার চারঘাট উপজেলার শলুয়া ইউনিয়নের বামনদিঘী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের পাশে একটি পুকুরে এসব ব্যালট পেপার পাওয়া গেছে।

শলুয়া ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ভোট কেন্দ্র ছিল বামনদিঘী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ওই ওয়ার্ডে সাতজন ইউপি মেম্বার (সদস্য) পদে নির্বাচনে অংশ নেন।

গত রোববার এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের দিন ভোট গণনার শেষ পর্যায়ে কয়েকজন প্রার্থীর বিক্ষুব্ধ কর্মীরা নির্বাচনে দায়িত্ব পালনকারীদের অবরুদ্ধ করে ভোটে অনিয়মের অভিযোগ করেন। তারা একপর্যায়ে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে কেন্দ্রের ভেতরে প্রবেশ করে ব্যালট পেপার ছিনতাই করেন। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। রাত ১২টার দিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীব্যালট পেপার উদ্ধার করে নির্বাচন কার্যালয়ে জমা দেয়। এরপর ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

এদিকে, নির্বাচনের দুইদিন পর মঙ্গলবার ওই কেন্দ্রের পার্শ্ববর্তী একটি পুকুরে বিপুলসংখ্যক সিলমারা ব্যালট পেপার পাওয়া গেছে। এতে স্থানীয় ভোটারদের মধ্যে নানা গুঞ্জন শুরু হয়েছে।

স্থানীয় বামনদিঘী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আসিফুজ্জামান বাধন জানান, তিনি দুপুরে মাঠে ঘাস কাটতে যাচ্ছিলেন। এসময় পুকুরে চার থেকে পাঁচটি ব্যালট পেপার ভাসতে দেখেন। পরে পুকুরের কিনারে বামনদিঘী কেন্দ্রের নাম লেখা একটি কাগজের প্যাকেট দেখতে পান। তাৎক্ষণিকভাবে তিনি বিষয়টি স্থানীয়দের জানালে লোকজন এসে কাগজের প্যাকেট থেকে দুই শতাধিক সিলমারা ব্যালট পেপার উদ্ধার করেন।

চারঘাট উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রবিউল আলম জানান, ভোটের দিন সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ভোট গণনা শেষে সিলগালা অবস্থায় ব্যালট পেপার নির্বাচন কার্যালয়ে জমা দেন। আমাদের গুণে নেয়ার সুযোগ নেই। এ অবস্থায় কোথাও ব্যালট পেপার পাওয়া গেলে উদ্ধার করে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, ‘আমি গণনা শেষে সব ব্যালট পেপার জমা দিয়েছি। কোথাও ব্যালট পেপার উদ্ধার হয়েছে কি না তা আমার জানা নেই।

তিনি বলেন, শলুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ। তিনি ভোট পেয়েছেন ৯ হাজার ৮৯৮টি। আর তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী পেয়েছেন পাঁচ হাজার ৪০১ ভোট।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ