Verified আই নিউজ বিডি ডেস্ক
প্রকাশ ৩০/১১/২০২১ ১১:৫১এ এম

BNP: বিভাগীয় শহরগুলোতে বিএনপির সমাবেশ, ঢাকা অচলের হুমকি

BNP: বিভাগীয় শহরগুলোতে বিএনপির সমাবেশ,  ঢাকা অচলের হুমকি
ad image
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে রাজধানীর নয়াপল্টনের পাশপাশি বিভাগীয় শহরগুলোতে শুরু হয়েছে সমাবেশ। বিভিন্ন জেলার নেতাকর্মী নিজ নিজ বিভাগীয় শহরে সমাবেশস্থলে উপস্থিত হয়েছেন। সমাবেশস্থল ঘিরে পুলিশকে দেখা গেছে সতর্ক অবস্থায়।

রাজশাহী মহানগরে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে বেলা ৩টার দিকে শুর হয়েছে সমাবেশ। তাতে যোগ দিতে আশপাশের জেলার নেতাকর্মীরা দুপুর থেকে সেখানে জড়ো হয়েছেন।

সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান। মহানগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল সমাবেশের সভাপতিত্বে আছেন। বিশেষ অতিথি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুও সমাবেশে উপস্থিত হয়েছেন। আছেন কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি আমানউল্লাহ আমানও।

প্রায় একই সময় সিলেট নগরীর রেজিস্টারি মাঠে সমাবেশ শুরু হয়েছে। তাতে প্রধান অতিথির হিসেবে উপস্থিত হয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

সমাবেশ শুরুর পর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার কেন্দ্রীয় নেতাদের উদ্দ্যেশে বলেন, ‘আপনারা বিভাগে বিভাগে সমাবেশ না ডেকে ঢাকায় মহাসমাবেশ ডাকেন। আমরা ঢাকা অচল করে দেব। নয় মাস লড়াই করে দেশ স্বাধীন করেছি। মাসখানেক লড়াই করতে পারলেই এই সরকারের পতন ঘটাতে পারব।’

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘আইনী বাধা নয়, খালেদা জিয়ার সুচিকিতসায় সবচেয়ে বড় বাধা শেখ হাসিনা। তাকে সরাতে হবে। না হলে দেশ ও খালেদা জিয়াকে বাঁচানো যাবে না।’

জাতীয় কমিটির সদস্য এম নাসের রহমান বলেন, ‘লিভার সিরোসিস সাধারণত পুরুষ মানুষের হয়। বেশি মদ খেলে লিভার সিরোসিস হয়, কিন্তু খালেদা জিয়া তো দীর্ঘদিন জেলে ছিলেন। তবে কি সরকার তার খাবারের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে দিয়েছে? বিদেশে চিকিৎসায় গেলে এইসব ধরা পরে যেতে পারে, তাই সরকার তাকে বিদেশ যেতে দিচ্ছে না।’

সমাবেশে দেখা গেছে ভাইস চেয়ারম্যান জয়নুল আবেদীন, যুগ্ন মহাসচিব হাবিব উন নবী সুহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন জীবন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরসহ দলের কেন্দ্রিয় ও সিলেট জেলাসহ বিভাগের অন্য জেলার নেতারা। এর সভাপতিত্বে আছেন মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী।

চট্টগ্রাম নগরীর কালামিয়া বাজার এলাকার কেবি কনভেনশন হলে দুপুরে সমাবেশ শুরুর পরপরই ভেঙে পড়ে মঞ্চ। সে সময় মঞ্চে দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক (চট্টগ্রাম) মাহবুবের রহমান শামীম, মহানগরের আহ্বায়ক শাহাদাত হোসেন, সদস্যসচিব আবুল হাশেম বক্করসহ অন্যান্য নেতারা।

তবে সঙ্গে সঙ্গে নেমে যাওয়ায় কেউ আহত হননি। মঞ্চ ঠিকঠাক করে মিনিট দশেক পর আবার সমাবেশ শুরু হয়।

রংপুরে নগরীর দলীয় কার্যালয়ের সামনে সেখানকার সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা বিকালে। তাতে যোগ দিতে দুপুর থেকেই আট জেলার নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থলে জড়ো হয়েছেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবার হাসান মাহমুদ টুকু, বিএনপির রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলুসহ জেলা ও নগর বিএনপির নেতাদের সমাবেশে থাকার কথা রয়েছে।

রংপুর নগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামছুজ্জামান বলেন, ‘আমরা সমাবেশ করতে সব প্রস্তুতি নিয়েছি। নেতাকর্মীরা আসছেন। আমরা চাই, পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের হয়রানি না করুক।’

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘সমাবেশকে ঘিরে যাতে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা না হয় সেদিকে আমরা কঠোর অবস্থানে রয়েছি।’

দুপুর আড়াইটার দিকে গঙ্গাদাস গুহ রোডে কোরআন তিলাওয়াতের মধ‍্য দিয়ে এ সমাবেশ শুরু হয়। বিভিন্ন এলাকা থেকে মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলে উপস্থিত হন স্থানীয় বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের বিপুল নেতাকর্মী।

দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান প্রধান অতিথি হিসেবে সমাবেশে আছেন। এর সভাপতিত্ব করছেন মহানগর বিএনপির আহবায়ক একেএম শফিকুল ইসলাম।

সমাবেশে যোগ দিয়েছেন বিশেষ অতিথি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, সহসাংগঠনিক সম্পাদক শরীফুল আলম ও ওয়ারেস আলী মামুন।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ

*PLEASE INSERT THIS PART OF THE TAG TO THE BODY SECTION OF THE PAGE WHERE YOU'D LIKE TO SEE ADS*