জাকারিয়া হোসেন হিমেল - (Gazipur)
প্রকাশ ২৬/১১/২০২১ ০৯:৪৪এ এম

গাজীপুরে শঙ্কায় ৪ শতাধিক ‘ট্রাফিক সহকারী’, ৫ দিন ধরে ডিউটি বন্ধ

গাজীপুরে শঙ্কায় ৪ শতাধিক ‘ট্রাফিক সহকারী’, ৫ দিন ধরে ডিউটি বন্ধ
ad image
গাজীপুরের যানজট নিরসনে জাহাঙ্গীর আলম পরিচালিত ফাউন্ডেশনের হয়ে সড়কে দায়িত্ব পালন করেন ৪ শতাধিক ‘ট্রাফিক সহকারী’। মেয়র দল থেকে বহিষ্কার হয়েছেন। দলীয় পদে নির্বাচিত হওয়ায় মেয়র পদ থেকেও হয়েছে সাময়িক বহিস্কার। এতে শঙ্কায় ৪ শতাধিক ট্রাফিক সহকারী।

গাজীপুরের বিভিন্ন জায়গায় যানজট নিরসনে ব্যস্ত থাকেন তারা। হাতে লাঠি, পিঠে লেখা গাজীপুর সিটি করপোরেশন। তাদের মতো এমন ৪ শতাধিক যুবক গাজীপুর সিটি করপোরেশন টঙ্গী, ষ্টেশন রোড, বড়বাড়ি, কলেজগেট, বোর্ড বাজার, ভোগড়া, চৌরাস্তা, জয়দেবপুর, রাজেন্দ্রপুর, নাওজোড়, কোনাবাড়িসহ নগরীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানে যানজট নিরসনে বিগত কয়েক বছর ধরে পুলিশকে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

পারিশ্রমিক হিসাবে মাস শেষে পান ১০ হাজার টাকা। জানা যায়, গাজীপুরে জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালিত একটি ‘শিক্ষা ফাউন্ডেশন’ আছে। ব্যবসা করে উপার্জিত টাকা এবং বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়-স্বজনের কাছ থেকে পাওয়া অনুদানে ফাউন্ডেশনের দাতব্য কাজ পরিচালিত হয়। যানজট নিরসনের এ উদ্যোগে বেতন বাবদ মাসে ব্যয় প্রায় অর্ধকোটি টাকা। এ ব্যাপারে জাহাঙ্গীর আলম নিজেই গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, এ ক্ষেত্রে তার মাসিক ব্যয় ৫০ লাখ টাকার মতো।
ট্রাফিক সহকারীর দায়িত্ব পালনকারী ৯৫ শতাংশ যুবক গাজীপুরের বাসিন্দা। এসব যুবকদের কর্মসংস্থান করে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে গাজীপুর ট্রাফিক পুলিশের সাথে কথা বললে তারা জানান, যেসব যুবকেরা ট্রাফিক সহকারীর দায়িত্ব পালন করেন তারা খুবই কর্মঠ। যানজট নিরসনে তারা একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ট্রাফিক সহকারীর সুপারভাইজার বিল্লাল হোসেন বলেন, ‘যানজট নিরসনসহ গাজীপুরের বিভিন্ন দুর্যোগ মুহূর্তে ট্রাফিক সহকারীরা কাজ করে যাচ্ছেন’।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ